মঙ্গলবার, ২১ মে, ২০১৯ |  saintmartinbdnews@gmail.com

প্রচ্ছদ » সেন্ট মার্টিন সংবাদ » বিড়ি শিল্পের উপর কর প্রত্যাহার করে ২৫ লক্ষ শ্রমিক বাঁচান

বিড়ি শিল্পের উপর কর প্রত্যাহার করে ২৫ লক্ষ শ্রমিক বাঁচান

আপডেট : ১০ মে, ২০১৯ , সময়ঃ ১১:২২ পূর্বাহ্ন

নাই

বিড়ি শিল্পের উপর সকল প্রকার কর প্রত্যাহার, ভারতের ন্যায় বাংলাদেশেও বিড়ি শিল্পকে কুঠিরশিল্প ঘোষনা ও এ শিল্পের সাথে জড়িত ২৫ লক্ষ শ্রমিকদের পরিবারকে বাঁচাতে কক্সবাজারের রামু উপজেলায় এক মানববন্ধন ও কক্সবাজার-৩ , সদর-রামু সংসদিয় আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমলকে স্মারক লিপি দিয়েছে রামু বিড়ি ভোক্তা সমিতি।
বৃহস্পতিবার বিকাল ৩তিনটার সময় রামুস্থ সদর-রামু সংসদিয় আসনের এমপি সাইমুম সরওয়ার কমলের বাস ভবনের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্টিত হয়। কক্সবাজার বিড়ি ভোক্তা সমিতির সভাপতি মোঃ জমির হোসেনের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্ব্য রাখেন কক্সবাজার বিড়িভোক্তা সমিতির সাধারন সম্পাদক মোঃ সেলিম হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ শওকত হোসেন প্রমুখ।
মানববন্ধনে ভক্তারা বলেন, বিড়ি শিল্পের সাথে দেশের গরীব ও সাধারন মানুষ জড়িত। গ্রাম বাংলার কৃষক-শ্রমিক ও মেহনতি মানুষ ধুমপান হিসাবে বিড়িকে প্রাধান্য দেয় এখনো। তাই সেই দরিদ্র মানুষের বিড়ি শিল্পের উপর কর প্রত্যাহার করে নতুন কর আরোপ বন্ধ করার দাবী জানান। তারা আরো বলেন, বর্তমান সরকার শ্রমিক বন্ধব সরকার। বিড়ি শিল্পের সাথে বাংলাদেশে ২৫ লক্ষ নারী পুরুশ শ্রমিক জড়িত। তার মানে প্রায় ১ কোটি মানুষের জীবনের সাথে সম্পৃক্ত। একটি কুচক্রি মহল বিড়ি শিল্পকে ধ্বংস করে ১ কোটি মানুষের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলার অপচেষ্টা করছে। তা প্রতিহত করতে হবে। নতুবা বৃহত্তর আন্দোলনের কর্মসূচী দেয়া হবে বলে হুশিয়ারী দেন। মানববন্ধন শেষে সদর-রামু আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমলকে নিন্মলিখিত দাবী নিয়ে স্মারকলিপি প্রধান করা হয়। দাবী সুমহ হচ্ছে, বিড়ির উপর অর্পিত সকল কর প্রত্যাহার করা। ভারতের ন্যায় বাংলাদেশেও বিড়ি শিল্পকে কুঠির শিল্প ঘোষনা করা। বিদেশী সিগারেট বাংলাদেশে বন্ধ করা। বিড়ি শিল্পকে ধ্বংস করার পায়তার বন্ধ করা। বিড়ি যাতে কম মুল্যে পায় সে ব্যবস্থা বজায় রাখা। বাংলাদেশে সিগারেট যতদিন থাকবে, বিড়ি শিল্প ততদিন থাকবে ও প্রতিবছর বাজেটে বিড়ি সিগারেটের কর বৈষম্য দুর করতে হবে।


সর্বশেষ সংবাদ